‘যখন ইচ্ছে আসবেন।’

সেদিন সন্ধ্যাকালে নীলমণিবাবু সিভিল সার্জন মেজর বর্মণের বাংলোতে গেলেন। বাংলোতেই অফিস। মেজর বর্মণ দিনের কাজ শেষ করিয়া উঠি-উঠি করিতেছেন‌, নীলমণিবাবু বলিলেন‌, ‘খবর নিতে এলাম।’

মেজর বর্মণ বলিলেন‌, ‘বসুন। পি এম করেছি। রিপোর্ট কাল পাবেন।’

‘কি দেখলেন? মৃত্যুর সময়?’

‘আন্দাজ রাত্রি দশটা।’

‘মৃত্যুর কারণ?’

‘যতদূর দেখেছি গায়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল না।’

‘বিষ-টিষ নাকি?’

মেজর বর্মণ একটি সিগার ধরাইয়া তাহাতে মন্দ-মন্থর টান দিলেন‌, ‘বিষ নয়। বড় আশ্চর্ষ উপায়ে মেরেছে। আপনার সন্দেহভাজনের মধ্যে মিলিটারি-ম্যান কেউ আছে নাকি?’

নীলমণিবাবু বলিলেন‌, ‘মিলিটারি-ম্যান কেউ নেই। কিন্তু মেয়েটির স্বামী যুদ্ধের সময় মিলিটারি কষ্ট্র্যাক্টর ছিল‌, গোরাদের সংস্পর্শে এসেছে। কী ব্যাপার বলুন?

মেজর বর্মণ বলিলেন‌, ‘মেয়েটির গায়ে আঘাতের চিহ্ন বাইরে থেকে দেখা যায় না‌, কিন্তু তার গলার তরুণাস্থি‌, যাকে thyroid cartillage বলে‌, সেটা একেবারে চুর্ণ হয়ে গেছে।’

নীলমণিবাবু স্থির দৃষ্টিতে চাহিয়া বলিলেন‌, ‘মানে গলা টিপে মেরেছে।’

‘না। গলা টিপে মারলে চামড়ার ওপর আঙুলের দাগ থাকত। আর‌, গলা টিপে মারার মধ্যে বৈচিত্র্য কিছু নেই।’

‘তবে?’

মেজর বর্মণ কয়েকবার সিগারেটের ধোঁয়া ছাড়িয়া বলিলেন‌, ‘গত মহাযুদ্ধে সৈনিকদের অস্ত্রহীন যুদ্ধের কৌশল শেখানো হয়েছিল‌, আপনি জানেন?

‘না। সে কি রকম?’

‘মনে করুন বনে-জঙ্গলে যুদ্ধ হচ্ছে। আপনি নিরস্ত্র অবস্থায় একজন সশস্ত্র শত্রুর হাতে ধরা পড়লেন। পালাবার উপায় নেই‌, পালাবার চেষ্টা করলে সে আপনাকে গুলি করে মারবে। এ অবস্থায় আত্মরক্ষার উপায় কি?–আপনি কৌশলে শত্রুর ডান পাশে গিয়ে দাঁড়ালেন‌, তারপর হঠাৎ তার দিকে ঘুরে ডান হাতের পৌঁচা দিয়ে সজোরে মারলেন তার গলায়। Thyroid cartillage ভেঙে গেল‌, তৎক্ষণাৎ মৃত্যু হল।’

‘তৎক্ষণাৎ মৃত্যু?’

‘হ্যাঁ। গলা টিপে মারতে গেলে আক্রান্ত ব্যক্তি যুদ্ধ করে মুক্ত হবার চেষ্টা করে। এতে ওসব বালাই নেই‌, সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যু।’

নীলমণিবাবু কিছুক্ষণ নীরব থাকিয়া বলিলেন‌, ‘আশ্চর্য! মেয়েটির মৃত্যু এইভাবে হয়েছে এতে আপনার সন্দেহ নেই?’

‘কোন সন্দেহ নেই।’

‘আচ্ছা‌, আজ উঠি। কাল সকালে লোক পাঠাব রিপোর্টের জন্যে।’

নীলমণিবাবু থানায় ফিরিয়া আসিলেন। সুরেশ্বর যে হাসিকে খুন করিয়াছে ইহাতে তাঁহার বিন্দুমাত্র সন্দেহ নাই। কিন্তু একটা ধোঁকা রহিয়াছে। যে লোকটা রাত্রে আসিয়া হাসির সঙ্গে দেখা করিত‌, সে কে? সে-ই কি হাসিকে গহনাগুলো উপহার দিয়াছিল? হাসির সহিত লোকটার কিরূপ সম্বন্ধ? সে যদি হাসির ‘বন্ধু হয় তবে হাসিকে খুন করিবে কেন?

সে-রাত্রে আর কিছু হইল না। পরদিন সকালে একজন সাব-ইন্সপেক্টর ও একজন রাইটার জমাদারকে সঙ্গে লইয়া নীলমণিবাবু আবার সুরেশ্বরের বাড়িতে গেলেন। আজ যেমন করিয়া হোক সুরেশ্বরের নিকট হইতে তিনি স্বীকারোক্তি আদায় করিবেন।

সুরেশ্বরের বাড়ির সদর দরজা খোলা‌, বাড়িতে কেহ আছে বলিয়া মনে হইল না। দুচার বার ডাকাডাকি করিয়া নীলমণিবাবু সঙ্গীদের লইয়া ভিতরে প্রবেশ করিলেন। শয়নকক্ষের খোলা দরজার সামনে গিয়া তাঁহাদের গতি রুদ্ধ হইল। মেঝের উপর সুরেশ্বর মরিয়া পড়িয়া আছে।

গত রাত্রে সুরেশ্বর যথা-নিয়ত কালীকিঙ্করের দোকানে তাস খেলিতে গিয়াছিল। রাত্রি আন্দাজ বারোটার সময় গৃহে ফিরিয়া আসে। তারপর কি হইয়াছে কেহ জানে না।

সিভিল সার্জেন মেজর বর্মণ সুরেশ্বরের মৃতদেহ ব্যবচ্ছেদ করিয়া রিপোর্ট দিলেন‌, গলার thyroid cartillage ভাঙিয়া তাহার মৃত্যু হইয়াছে। অর্থাৎ যে উপায়ে হাসির মৃত্যু হইয়াছিল ঠিক সেই উপায়ে সুরেশ্বরেরও মৃত্যু হইয়াছে।

 

গল্প শেষ করিয়া নীলমণিবাবু কিছুক্ষণ হেঁট মুখে বসিয়া রহিলেন‌, তারপর মুখ তুলিয়া বলিলেন‌, ‘এই হচ্ছে ঘটনা। তদন্তের সূত্রে আমি যা-যা জানতে পেরেছিলাম সব আপনাকে বলেছি। আমি প্রথমে সুরেশ্বরকে সন্দেহ করেছিলাম‌, পরে দেখলাম‌, হাসি আর সুরেশ্বরকে একই লোক একই উপায়ে খুন করেছে। আমি আসামীকে ধরতে পারিনি‌, আসামী কে তাও জানতে পারিনি। আপনি বলতে পারেন কে আসামী?’

ব্যোমকেশ গালে হাত দিয়া শুনিতেছিল‌, বলিল‌, ‘আরো কয়েকটা প্রশ্নের উত্তর দেবেন?’

নীলমণিবাবু বলিলেন‌, ‘উত্তর যদি জানা থাকে নিশ্চয় দেব।’

ব্যোমকেশ বলিল‌, ‘সুরেশ্বরের ওয়ারিস কে?’

‘সুরেশ্বরের এক খুড়তুতো বোন। সুরেশ্বর উইল করেনি। খুড়তুতো বোনটি অনাথা বিধবা‌, কলকাতায় কোথায় রাঁধুনি-বৃত্তি করত; সেই সব পেয়েছে।’

‘যাক।–যে-রাত্রে সুরেশ্বরের মৃত্যু হয়‌, সে-রত্রে ওর তিন বন্ধু কালীকিঙ্কর‌, দেবু মণ্ডল আর বিলাস দত্ত কোথায় ছিল?’

‘সুরেশ্বরের বাড়ি যাবার পর ওরা তিনজন প্রায় সারা রাত কালীকিঙ্করের দোকানে বসে তাস খেলেছিল। আমি ওদের প্রত্যেকের পিছনে চর লাগিয়েছিলাম‌, তাদের কাছেই খবর পেয়েছি। ওরা সুরেশ্বরকে খুন করেনি।’

‘হুঁ। বিনোদ সরকারের পিছনে চর লাগিয়েছিলেন?’

না। বিনোদ সরকারের ওপর আমার সন্দেহ হয়নি। তার কোনো মোটিভ ছিল না। সুরেশ্বরকে হয়তো মারতে পারতো‌, কিন্তু হাসিকে মারবে কেন?’

‘তা বটে। দিনমণি হালদার তখন কোথায় ছিল। খোঁজ নিয়েছিলেন?’

নিয়েছিলাম। সে তখন পঞ্চাশ মাইল দূরে একটা গ্রামে ছিল। আমাশায় ভুগছিল। নড়বার ক্ষমতা ছিল না। তাছাড়া ওভাবে খুন করবার কৌশল সে জানবে কোত্থেকে?’

‘হুঁ। আচ্ছা‌, একটা কথা বলুন। আপনার কি মনে হয় হাসির স্বভাব-চরিত্র মন্দ ছিল?’

‘না। আমার বিশ্বাস সে ভাল মেয়ে ছিল।’

ব্যোমকেশ নতমুখে ভাবিতে ভাবিতে বলিল‌, ‘কিন্তু তার রক্তে দোষ ছিল। তার মা-কি নাম হাসির মায়ের?’

‘অমলা।’

ব্যোমকেশ চোখ তুলিয়া নীলমণিবাবুর পানে চাহিল; তিনিও প্রখর চক্ষে তাহার পানে চাহিয়া রহিলেন। তাঁহার শরীর ক্রমশ কঠিন হইয়া উঠিতে লাগিল। কিছুক্ষণ দুইজনের চোখে চোখ আবদ্ধ হইয়া রহিল; তারপর ব্যোমকেশ তাকিয়া ঠেস দিয়া বসিল‌, নিবাপিত গড়গড়ার নলটা হাতে তুলিয়া লইল।

নীলমণিবাবু আত্মসংবরণ করিয়া ধীরস্বরে বলিলেন‌, ‘আর কিছু জানতে চান?’

ব্যোমকেশ নিরুৎসুকভাবে মাথা নাড়িল‌, ‘আর কিছু জানিবার নেই।’

নীলমণিবাবু একটু বাঁকা সুরে বলিলেন‌, ‘কিছু বুঝলেন?’

ব্যোমকেশ বলিল‌, ‘সবই বুঝেছি‌, নীলমণিবাবু।’

নীলমণিবাবু কিছুক্ষণ স্থির হইয়া রহিলেন‌, শেষে বলিলেন‌, ‘সবই বুঝেছেন! হাসিকে কে খুন করেছিল। আপনি বুঝেছেন?’

‘বুঝেছি বৈকি। হাসিকে খুন করেছিল সুরেশ্বর।’

‘তাই নাকি! তাহলে সুরেশ্বরকে মারল কে?’

‘সুরেশ্বরকে মেরেছিল-হাসির বাপ।’

‘হাসির বাপ! কিন্তু দিনমণি হালদার সে-সময় পঞ্চাশ মাইল দূরে ছিল—’

‘আমি দিনমণি হালদারের কথা বলিনি‌, হাসির বাপের কথা বলেছি। হাসির জন্মদাতা পিতা।’

নীলমণিবাবু নিস্তব্ধ হইয়া বসিয়া রহিলেন। দেখিতে লাগিলাম। তাঁহার মুখ হইতে পরতে পরতে রক্ত নামিয়া যাইতেছে। অবশেষে তিনি যখন কথা বলিলেন তখন তাঁহার কণ্ঠস্বরের গাম্ভীৰ্য আর নাই‌, ক্ষীণ স্বলিত স্বরে বলিলেন‌, ‘জন্মদাতা পিতা-কার কথা বলছেন?’

ব্যোমকেশ দুঃখিতভাবে মাথা নাড়িয়া বলিল‌, ‘কার কথা বলছি আপনি জানেন‌, নীলমণিবাবু। গল্পটা আমাকে না বললেই ভাল করতেন।’

অতঃপর নীলমণিবাবু কী বলিতেন তাহা আর শোনা হইল না। বীরেনবাবু প্রবেশ করিয়া বলিলেন‌, ‘ব্যোমকেশবাবু্‌, রান্না তৈরি। আপনারা স্নান করে নিন। নীলমণিদা‌, আপনিও মধ্যাহ্ন ভোজনটা এখানেই সেরে নিন না?’

নীলমণিবাবু ধড়মড় করিয়া উঠিয়া দাঁড়াইলেন।

‘না না‌, আমি চললাম। অনেক দেরি হয়ে গেল।’ বলিয়া তিনি দ্রুত প্রস্থান করিলেন। আমাদের প্রতি দৃকপাত করিলেন না।

আহারাদি সম্পন্ন করিয়া দুইজনে তাকিয়া মাথায় দিয়া লম্বা হইয়াছিলাম। গড়াগড়া চলিতেছিল।

বলিলাম‌, ‘কি করে বুঝলে বল।’

ব্যোমকেশ বলিল‌, ‘নীলমণিবাবুর গল্প শুনতে শুনতে মনে হচ্ছিল হাসির প্রতি তাঁর পক্ষপাত আছে। অথচ তাঁর গল্প অনুযায়ী‌, হাসিকে জীবিত অবস্থায় তিনি দেখেননি। তার চরিত্র সম্বন্ধে যে সাক্ষী প্রমাণ পাওয়া যায়‌, তাতে তাকে পতিগতপ্ৰাণা সতীসাধবী মনে করবার কারণ নেই। সে প্রগলভা ছিল‌, তার স্বামী তাকে সন্দেহ করত‌, একজন অজ্ঞাত লোক রাত্রে তার সঙ্গে দেখা করত। তবে তার প্রতি নীলমণিবাবুর পক্ষপাত কেন?

‘হাসির মা অমলাও সীতা-সাবিত্রী ছিল না। অমলার স্বামী দিনমণি হালদার জেলখানার পোষা পাখি হয়ে দাঁড়িয়েছিল; মাঝে মাঝে ছাড়া পেত‌, আবার জেলে গিয়ে ঢুকত। দিনমণি হালদার হাসির বাপ নাও হতে পারে।

‘বিনোদ সরকারও হাসির বাপ নয়। হাসির মায়ের সঙ্গে যখন তাঁর ঘনিষ্ঠতা হয়েছিল‌, তখন হাসির বয়স তিন-চার বছর। তবে কে?

‘নীলমণিবাবু গল্প বলবার আগে কথাপ্রসঙ্গে বলেছিলেন‌, পুলিসের চাকরিতে ঢুকে প্রথম তিনি এই শহরে পোস্টেড হয়েছিলেন। দিনমণি পেশাদার চোর‌, তাকে ধরতে কিংবা তার ঘর-দোর খানাতল্লাশ করবার জন্যে হয়তো নীলমণিবাবু গিয়েছিলেন। তিনি তখন যুবক‌, হয়তো দিনমণির কুহকময়ী স্ত্রীর ফাঁদে পড়ে গিয়েছিলেন; দিনমণি জেলে যাবার পর গোপনে দু’জনের মেলামেশা হয়েছিল।

‘দু-তিন বছর পরে নীলমণিবাবু এ জেলা থেকে বদলি হয়ে গেলেন; যাবার আগে জেনে গেলেন তাঁর একটি মেয়ে আছে। মেয়ের নাম হাসি। দূরে গিয়েও তিনি হাসি ও হাসির মায়ের খবর রাখতেন। তিনি বিয়ে করেননি‌, তাই সংসারের বন্ধন হাসিকে ভুলিয়ে দিতে পারেনি। সংসারে হাসিই তাঁর একমাত্র রক্তের বন্ধন।

‘কর্মজীবনের শেষের দিকে তিনি আবার এই শহরে ফিরে এলেন। হাসির মা তখন মরে গেছে‌, হাসির বিয়ে হয়েছে। নীলমণিবাবুর অভ্যাস ছিল তিনি গভীর রাত্রে সাইকেল চড়ে শহর তদারক করতে বেরুলেন। সেই সময় হাসির সঙ্গে দেখা করতেন, তাকে ছোটখাটো দু-একখানা গয়না উপহার দিতেন। হাসিকে নিজের পরিচয় দিয়েছিলেন। কিনা বলা যায় না। তবে হাসি হয়তো আন্দাজ করেছিল।

‘যে-রাত্রে সুরেশ্বর হাসিকে খুন করে সে-রত্রে নীলমণিবাবু হাসির সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন। তারপর যা-যা হয়েছিল সবই আমরা নীলমণিবাবুর মুখে শুনেছি। আমার বিশ্বাস সুরেশ্বর তাস খেলতে খেলতে উঠে এসে হাসিকে খুন করেছিল‌, তারপর ফিরে গিয়ে বন্ধুদের বলেছিল–বৌকে খুন করেছি‌, এখন তোরা আমাকে বাঁচা। চারজনের মধ্যে অটুট বন্ধুত্র। তারা পরামর্শ করে স্থির করল‌, মড়া পুড়িয়ে ফেলা যাক‌, তারপর রটিয়ে দিলেই হবে‌, হাসি কুলত্যাগ করেছে।

‘নীলমণিবাবু চার বন্ধুকে থানায় ধরে আনলেন‌, কিন্তু তাদের অ্যালিবাই ভাঙতে পারলেন না। তিনি যখন দেখলেন তাঁর মেয়ের হত্যাকারীকে ফাঁসিকাঠে লটকাতে পারবেন না। তখন ঠিক করলেন নিজেই তাঁকে খুন করবেন। তিনি আর বিলম্ব করলেন না‌, হাসির মৃত্যুর চব্বিশ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই সুরেশ্বরকে খুন করলেন।

‘কিন্তু ভেবে দেখ‌, আমি যেভাবে গল্পটাকে খাড়া করেছি‌, তার আগাগোড়াই অনুমান। এই অনুমান কেবল তখনি সত্যে পরিণত হতে পারে যদি নিশ্চয়ভাবে জানা যায় যে‌, নীলমণিবাবু হাসির বাপ! আমি তাঁর জন্যে ফাঁদ পাতলাম‌, আচমকা জিগ্যেস করলাম-হাসির মায়ের নাম কি? তিনি না ভেবেচিন্তে বলে ফেললেন–অমলা!

‘হাসির মায়ের নাম তিনি জানলেন কি করে? দশ বছর আগে সে মরে গেছে‌, এই মামলায় তার নাম একবারও কেউ উচ্চারণ করেনি। তবে নীলমণিবাবু জানলেন কি করে? আর সন্দেহ রইল না।

‘আমার সামনেই হাসির মায়ের নাম উচ্চারণ করেই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে‌, অসাবধানে তিনি ফাঁদে পা দিয়েছেন‌, আমিও তাঁর মুখ দেখে বুঝতে পেরেছিলাম আমার ফাঁদ পাতা ব্যর্থ হয়নি। নীলমণিবাবুর অজানা আসামী স্বয়ং নীলমণিবাবু।’

ব্যোমকেশের যুক্তিজালে ছিদ্র পাইলাম না। বলিলাম‌, নীলমণিবাবু তাহলে নিরস্ত্র যুদ্ধের কায়দা আগে থাকতে জানতেন।’

ব্যোমকেশ বলিল‌, ‘না। বিদ্যেটা তিনি সিভিল সার্জন মেজর বর্মণের কথা শুনে শিখে নিয়েছিলেন।’

Print Friendly
%d bloggers like this: