আমরা অনেকসময় বলি, চিন্তায় চিন্তায় মানুষটা শুকিয়ে গেল। দুশ্চিন্তায় মানুষের যে ওজন কমে সেটা আমাদের নিত্যদিনের অভিজ্ঞতা। কিন্তু আসলে এটা মস্তিষ্কের কাজের কারণে না। চিন্তার কাজটা এককভাবে মানুষের মস্তিষ্কই করে। এবং যেকোনো কাজে শক্তি ব্যয় হয়। মস্তিষ্কের কাজেও এর ব্যতিক্রম নেই। সুতরাং প্রশ্ন ওঠে, চিন্তায় যে শক্তিক্ষয় হয়, তাতে তো ওজন কমারই কথা। সেটা না হওয়ার কারণ হলো চিন্তায় এত কম শক্তি ব্যয় হয় যে তা অনায়াসে উপেক্ষা করা যায়। আমরা যদি শরীরের চর্বি পুড়িয়ে শক্তি তৈরির কথা ভাবি তাহলে বলতে হয় মস্তিষ্কের কাজের কারণে সেরকম কিছু হয় না। কোনো বিষয় নিয়ে চিন্তার সময় মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশের পিইটি (পজিট্রন এমিশন টমোগ্রাফি) স্ক্যান ও এমআরআই (ম্যাগনেটিক রেজোনেন্স ইমেজিং)-এর সাহায্যে প্রাপ্ত তথ্য পর্যবেক্ষণ করে চিন্তার বিভিন্ন পর্যায়ে শক্তি ব্যয়ের বিশদ মানচিত্র আঁঁকা হয়েছে। দেখা গেছে মস্তিষ্কে সংকেত আদান প্রদান প্রক্রিয়ায় শক্তি ব্যবহারটা হয় দেহকোষ ও পরমাণু স্তরে। কিন্তু এতে খুব সামান্য তাপ তৈরি হয়। সুতরাং চিন্তার কারণে মানুষের ওজন হ্রাসের কোনো কারণ নেই। তবে খুব সম্ভবত দুশ্চিন্তায় মানুষের মন ভারাক্রান্ত হয়ে খাওয়ার রুচি কমে যায়। আর কম খেলে তো ওজন কমবেই। আবার কেউ কম খেয়ে পরিকল্পিতভাবে ওজন কমানোর কর্মসূচি গ্রহণ করলে মনকে সেদিকে অনুপ্রাণিত করার জন্য চিন্তাভাবনাও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সেদিক থেকে আমাদের অভিজ্ঞতায় দেখি চিন্তা বা দুশ্চিন্তায় মানুষ কিছু ওজন হারায়।

আব্দুল কাইয়ুম
সূত্র: দৈনিক প্রথম আলো, জানুয়ারী ১৬, ২০১০

%d bloggers like this: